করোনা রোগীদের ওয়ার্ডে ডিউটি দেওয়ায় হাসপাতাল ভবন থেকে ঝাঁপ নার্সের

করোনাভাইরাস সংক্রমিত কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত রোগীদের ওয়ার্ডে ডিউটি দেওয়ায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বিল্ডিং থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন নার্সিংপড়ুয়া এক ছাত্রী। হাসপাতালের প্রথম তলা থেকে ঝাঁপ দেওয়ায় প্রাণে বেঁচে গেলেও গুরুতর আঘাত পেয়েছেন ওই ছাত্রী।

ভারতীয় গণমাধ্যম এই সময়ের খবরে বলা হয়, মঙ্গলবার ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের বরুণ অর্জুন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। যদিও ঘটনাটি সামনে আসে গতকাল বৃহস্পতিবার। থানায় লিখিত অভিযোগ দায়েরের পর, পুলিশই তা জানায়।

আহত নার্সের পরিবার এই ঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে সরাসরি অভিযোগের আঙুল তুলেছেন। ওই মেডিকেল স্টাফের আত্মীয়দের অভিযোগ, করোনা হাসপাতালে ডিউটি করতে অস্বীকার করায়, তাকে মানসিক ভাবে হেনস্থা করা হয়। সে হেনস্থার জেরেই ওই নার্সিংছাত্রী আত্মহত্যা করতে গিয়েছিলেন। ওই হাসপাতালেই তার চিকিত্‍‌সা চলছে।
ওই নার্সের এক নিকট আত্মীয় বলেন, আমরা খোঁজ নিয়ে জেনেছি, করোনা হাসপাতালে ডিউটি করতে রাজি হওয়ায় ওই মেয়েকে মানসিক হেনস্থার শিকার হতে হয়। মানসিক সেই চাপ সহ্য করতে না পেরেই একটা অঘটন ঘটাতে চলেছিল।পুলিশ জানিয়েছে, ওই নার্সের অভিযোগের ভিত্তিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে একটি এফআইআর রুজু হয়েছে।

হাসপাতাল ভবন থেকে ঝাঁপ দেওয়ার আগে ওই নার্স সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ভিডিও আপলোড করেন। সেখানে তিনি অভিযোগের সুরে বলেন, কোভিড হাসপাতালের ডিউটিতে যোগ দেওয়ার জন্য আমার ওপর চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে। আমার স্বাস্থ্যবীমা না-থাকার কারণে, আমি কোভিড হাসপাতালে ডিউটি করতে রাজি হইনি। বেতন বাড়ানোর আর্জি জানিয়েছিলাম, তা-ও অস্বীকার করা হয়। উল্টো আমার ওপর মানসিক নির্যাতন শুরু হয়। ঘটনার পর সেই ভিডিওটি সামনে এসেছে।
জেলাশাসক ইন্দ্র বিক্রম সিং জানিয়েছেন, ওই নার্সের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে লোকাল থানায় একটি এফআইআর রুজু হয়েছে। যদিও, হাসপাতালের পক্ষ থেকে মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।উত্তরপ্রদেশে এখনও পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৩৬ হাজার ২৩৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে সংক্রামিত ৪ হাজার ৪৭৫ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৪ জন মারা গিয়েছেন।