কিংবদন্তী আইয়ুব বাচ্চুর জন্মদিন আজ

রক লিজেন্ড আইয়ুব বাচ্চুর ৫৮তম জন্মবার্ষিকী আজ। ১৯৬২সালের ১৬ই আগষ্ট চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন বাংলা রক সংগীতের এই কিংবদন্তি শিল্পী। শ্রোতাদের হৃদয় জুড়ে এখনো তার বিচরন নক্ষত্রের আলোর মতই উজ্জ্বলতায়। তিনি ফেলে যাওয়া রুপালি গিটারের কাব্যময়তার প্রতীক আইয়ুব বাচ্চু।

বাণিজ্যনগরী চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন বাংলার রক লিজেন্ড আইয়ুব বাচ্চু। গুরু আজম খানের পদাংক অনুসরন করে হাল ধরেন বাংলা রক মিউজিকের। রক সংগীতকে বাংলার গণমানুষের গানে পরিণত করায় ভক্তদের কাছ থেকে পেয়েছিলেন বস উপাধি।

কলেজে জীবনে বন্ধুদের নিয়ে গোল্ডেন বয়েজ নামে একটা ব্যান্ডদল গড়ে তোলেন আইয়ুব বাচ্চু, পরে এর নাম পাল্টে রাখা হয় আগলি বয়েজ। বিয়েবাড়ি, জন্মদিন আর ছোটখাটো নানা অনুষ্ঠানে তাদের এই ব্যান্ডদল গান করতো। আইয়ুব বাচ্চুর বন্ধুরা যে যার মতো একেক দিকে ছড়িয়ে পড়লেও আইয়ুব বাচ্চু ব্যান্ডদল ফিলিংস’র সঙ্গে যুক্ত হয়ে যান। এরপর ১৯৮০ সালে তিনি যোগ দেন সোলস ব্যান্ডে। এই ব্যান্ডের লিডগিটার বাজানোর দায়িত্বে ছিলেন টানা ১০ বছর। ১৯৯১ সালের ৫ এপ্রিল গড়ে তোলেন নতুন ব্যান্ড এলআরবি।

সংগীতের আঙিনায় আইয়ূব বাচ্চু একাধারে গীতিকার, সুরকার, সংগীত পরিচালক এবং গায়ক হিসেবে জনপ্রিয়। মূলত রক ঘরানার কণ্ঠের অধিকারী হলেও আধুনিক গান, ক্লাসিকাল সংগীত এবং লোকগীতি দিয়েও শ্রোতাদের মুগ্ধ করেছেন তিনি। আইয়ূব বাচ্চুর কণ্ঠ দেয়া প্রথম গান হারানো বিকেলের গল্প।

আইয়ূব বাচ্চুর প্রথম প্রকাশিত একক অ্যালবাম রক্তগোলাপ। আইয়ূব বাচ্চুর সফলতার শুরু দ্বিতীয় অ্যালবাম ময়না’র মাধ্যমে। তিনি বেশ কিছু বাংলা ছবিতে প্লে-ব্যাকও করেছেন। এছাড়া অসংখ্য অ্যালবামেও কণ্ঠ দিয়েছেন আইয়ুব বাচ্চু।

রক, ব্লুজ, জ্যাজ, হেভিমেটাল, শাস্ত্রীয় সংগীতের মত বৈচিত্রময় ঘরানায় বাজিয়ে চিহ্নিত হয়েছিলেন দক্ষিন এশিয়ার সেরা গিটার বাদক হিসেবে। ২০১৮ সালের ১৮ই অক্টোবর হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেও তার গান বহু যুগ ভেসে বেরাবে বাংলার হাটে মাঠে পথে প্রান্তরে।